ভ্রমণ

Fahmida jui 3 months ago ভিউ:156

এ যেন‌ এক অন্যরকম লেক


আধুনিক বিশ্বেও অনেক অজানা রহস্যা আছে যেগুলোর কোন বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা আজও পাওয়া যায় নি।"lake of no return " এর অন্যতম উদাহরণ। 



উত্তর মিয়ানমারের ঘন জংগলে অবস্থিত এই হ্রদ। এই হ্রদে কেউ গেলে সে আর ফিরে আসে না।দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় এই হ্রদের পাশ দিয়ে ব্রিটিশ সৈন্যবহর যাচ্ছিল কিন্তু পরবর্তীতে তাদের কোন হদিস পাওয়া যায় নি। এই ঘটনা অনুসন্ধানের জন্য পরবর্তীতে একদল মার্কিন সৈন্যকে সেই হ্রদের ধারে পাঠানো হয় কিন্তু তারাও আর ফিরে আসে নি।জাপানিজ সৈন্যদের একটি দল যুদ্ধে হেরে গিয়ে সেই লেকের ধারে আশ্রয় নিয়েছিল তবে তারাও কয়েকদিনের মধ্যে মারা যায় ম্যালেরিয়ার প্রকোপে। ধারণা করা হয় এর পিছনেও এই হ্রদের ভূমিকা রয়েছে। কথিত আছে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় এর আশেপাশে দিয়ে যত বিমান উড়ে গিয়েছে তার একটিও আর ফিরে আসে নি।
এই হ্রদ নিয়ে অনেক কাহিনী প্রচলিত রয়েছে।আদিবাসীদের মতে এখানে নাকি এক দৈত্য বাস করে।অনেকে নাকি এর কান্নাও শুনেছেন।রাতের বেলা নাকি ওই হ্রদ থেকে হাত বেরিয়েছে আসে।
তবে স্থানীয় মানুষদের থেকে যা জানা যায় তা সম্পূর্ণ আলাদা।তাদের মতে এই এই লেকের ধারে একটি বর্ধিষ্ণু গ্রাম ছিল।তারা এই হ্রদের মাছ শিকার করে জীবিকা নির্বাহ করত।একদিন এক জেলের জালে বড় একটি মাছ ধরা পড়ল আর সেই উপলক্ষে তারা ভোজের আয়োজন করল।তবে সেই ভোজে দুই জন অনুপস্থিত ছিল।সেই দুইজন হল এক বুড়ী আর তার নাতনি। তারা সেদিন রাতে সপ্নে দেখতে পারে যে তাদের ওই জায়গা ত্যাগ করতে হবে।পরেরদিন সকালে তারা সেই এলাকা ত্যাগ করলে ওই গ্রাম প্রবল ভূমিকম্পে মাটিতে মিশে যায়। অনেকে বলেন সেই হ্রদে জলদেবীর আর্শীবাদ প্রাপ্ত তিনটি মাছ থাকে।এরকম অনেক জনশ্রুতি শোনা যায় এই হ্রদ সম্পর্কে। 

কমেন্ট


সাম্প্রতিক পোস্ট